মুন্তাখাব হাদিস – একরামে মুসলিমঃ (মুসলমানের মর্যাদা) হাদিস- ১ – ৩

হাদিস-১ (মুসলমানের মর্যাদা)

হযরত আ’য়েশা রদিয়াল্লহু আ’নহা (عآءشة رضى الله عنْها) বলেন আমাদিগকে রসুলুল্লহ সল্লাল্লহু আ’লাইহি ওয়া সাল্লাম এই বিষয়ে হুকুম করিয়াছেন যে, আমরা যেন মানুষের সহিত তাহাদের মর্যাদার প্রতি লক্ষ রাখিয়া আচরণ করি। (মুকাদ্দিমা সহীহ মুসলিম)

মুন্তাখাব হাদিস (দারুল কিতাব, জানুয়ারী ২০০২) পৃষ্ঠা ৫১২

হাদিস-২ (মুসলমানের মর্যাদা)

হযরত ইবনে আ’ব্বাস রদিয়াল্লহু আ’নহুমা (ابْن عبّاس رضى الله عنْهما) বর্ণনা করেন যে, রসুলুল্লহ সল্লাল্লহু আ’লাইহি ওয়া সাল্লাম কা’বার দিকে লক্ষ করিয়া (শওক ও আনন্দের আতিশয্যে) এরশাদ করিয়াছেন, লা-ইলাহা ইল্লাহ, (হে কা’বা!) তুমি কতই না পবিত্র, তোমার খুশবু কতই উত্তম এবং তুমি কতই না মর্যাদার যোগ্য; (কিন্তু) মুমিনের মর্যাদা ও সম্মান তোমার চাইতেও বেশি। আল্লহ তায়া’লা তোমাকে মর্যাদার যোগ্য বানাইয়াছেন। (এমনি ভাবে) মুমিনের মাল, রক্ত ও ইজ্জাত আব্রুকেও মর্যাদার যোগ্য বানাইয়াছেন। আর (এই মর্যাদার কারণে) এই বিষয়ও হারাম করিয়া দিয়াছেন যে, আমরা কোন মুমিনের ব্যাপারে সামান্যতমও খারাপ ধারণা করি। (তাবারানী, মাজমায়ে যাওয়ায়েদ)

মুন্তাখাব হাদিস (জানুয়ারী ২০০২) পৃষ্ঠা ৫১৩

হাদিস-৩ (মুসলমানের মর্যাদা)

হযরত জাবের ইবনে আ’ব্দুল্লহ রদিয়াল্লহু আ’নহুমা (جابر بْن عبْد الله رضى الله عنْهما) বর্ণনা করেন, রসুলুল্লহ সল্লাল্লহু আ’লাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করিয়াছেন, মুসলমান দরিদ্রগণ মুসলমান ধনীদের চল্লিশ বছর পূর্বে জান্নাতে প্রবেশ করবে। (তিরমিযী)

মুন্তাখাব হাদিস (জানুয়ারী ২০০২) পৃষ্ঠা ৫১৩