মুন্তাখাব হাদিস – একরামে মুসলিমঃ (মুসলমানের মর্যাদা) হাদিস- ৪১-৪৩

হাদিস-৪১ (মুসলমানের মর্যাদা)

হযরত আ’ব্দুল্লহ ইবনে উ’মার রদিয়াল্লহু আ’নহুমা (عبْد الله بْن عمر رضى الله عنْهما) বর্ণনা করেন যে, রসুলুল্লহ সল্লাল্লহু আ’লাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করিয়াছেন, আমি আশ্চর্যবোধ করি ঐ ব্যক্তির উপরে যে নিজের মাল দ্বারা তো গোলাম খরিদ করিয়া আযাদ করিতেছে কিন্তু উত্তম আচরণের দ্বারা আযাদ লোকগুলিকে কেন খরিদ করিতেছে না?

অথচ উহার সওয়াব অনেক বেশি। অর্থাৎ যখন লোকদের সহিত উত্তম আচরণ করিবে তখন লোকেরা তাহার গোলাম হইয়া যাইবে। (কাজাউল হাওয়াইয, জামে সগীর)

মুন্তাখাব হাদিস (দারুল কিতাব,জানুয়ারী ২০০২) পৃষ্ঠা ৫৩১

হাদিস-৪২ (মুসলমানের মর্যাদা)

হযরত আবু উমামাহ রদিয়াল্লহু আ’নহু (أبىْ أمامة رضى الله عنْه) বর্ণনা করেন যে, রসুলুল্লহ সল্লাল্লহু আ’লাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করিয়াছেন, আমি ঐ ব্যক্তির জন্য জান্নাতের কিনারায় একটি ঘরের জিম্মাদারী লইতেছি, যে হকের উপর থাকিয়াও ঝগড়া ছাড়িয়া দেয়, ঐ ব্যক্তির জন্য জান্নাতের মধ্যখানে একটি ঘরের জিম্মাদারী লইতেছি, যে ঠাট্টা বিদ্রুপের মধ্যেও মিথ্যা কথা বলে না আর ঐ ব্যক্তির জন্য জান্নাতের সর্বোচ্চ স্তরে একটি ঘরের জিম্মাদারী লইতেছি, যে নিজের চরিত্রকে ভাল বানাইয়া লয়। (আবু দাউদ)

মুন্তাখাব হাদিস (দারুল কিতাব,জানুয়ারী ২০০২) পৃষ্ঠা ৫৩১

হাদিস-৪৩ (মুসলমানের মর্যাদা)

হযরত আনাস ইবনে মালেক রদিয়াল্লহু আ’নহু (أنسْ بْن مالكٍ رضى الله عنْه) বর্ণনা করেন যে, রসুলুল্লহ সল্লাল্লহু আ’লাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করিয়াছেন, যে ব্যক্তি নিজের কোন মুসলমান ভাই কে খুশি করার জন্য এইভাবে সাক্ষাত করে যেভাবে আল্লহ তায়া’লা পছন্দ করেন (যেমন হাসিমুখে), কিয়ামাতের দিন আল্লহ তায়া’লা তাহাকে খুশি করিবেন। (তাবারানী, মাজমায়ে যাওয়ায়েদ)

মুন্তাখাব হাদিস (দারুল কিতাব,জানুয়ারী ২০০২) পৃষ্ঠা ৫৩২